,


‘পাসওয়ার্ড’ নকলের অভিযোগে সেন্সর বোর্ডের নোটিশ

‘পাসওয়ার্ড’ নকলের অভিযোগে সেন্সর বোর্ডের নোটিশ

বিনোদন ডেস্কঃ ভিনদেশি সিনেমা নকল করে ঢালিউডে অহরহ নির্মিত হচ্ছে সিনেমা। নকল নিয়ে বিতর্কের মুখে পড়েছেন অনেক নির্মাতা ও কলাকুশলী। নকলের অভিযোগ মাথায় নিয়েই দেশের প্রেক্ষাগৃহে চলছে মালেক আফসারি পরিচালিত ও শাকিব খান অভিনীত ‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমাটি। মুক্তির পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও গণমাধ্যমে সমালোচনা, বিতর্কের ঝড় উঠে।

এর পরই টনক নড়ে সেন্সর বোর্ডের সদস্যদের। এ নিয়ে ‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমার প্রযোজককে নোটিশ পাঠিয়েছে সেন্সর বোর্ড। এ বিষয়ে সেন্সর বোর্ডের সচিব মোমিনুল হক জীবন বলেন, ‘বিভিন্ন গণমাধ্যমে নকলের স্বপক্ষে খবর ও লিখিত অভিযোগ আসায় সিনেমাটির প্রযোজককে নোটিশ পাঠিয়েছি। নোটিশে এক সপ্তাহ কার্যদিবসের মধ্যে নকল প্রসঙ্গে প্রযোজনা সংস্থার অবস্থান জানাতে বলা হয়েছে। সে হিসেবে আগামী বুধবার এক সপ্তাহের কার্যদিবস শেষ হবে।’

এছাড়া সিনেমার একটি গানের সুর চুরির অভিযোগও উঠেছে। এ প্রসঙ্গে মোমিনুল হক জীবন বলেন, ‘তিনি (শওকত আলী ইমন) অভিযোগ করলে বিষয়টি খতিয়ে দেখব।’

সিনেমার গল্প নির্মাতা পছন্দ করেছেন। প্রযোজকের চেয়ে নির্মাতা নকলের জন্য বেশি দায়ী বলে কেউ কেউ মনে করছেন। এর আগেও পরিচালক মালেক আফসারি দু’টি নকল সিনেমা নির্মাণের দায়ে সেন্সর বোর্ডে মুচলেকা দিয়েছেন বলেও জানান নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সেন্সর বোর্ডের এক সদস্য। এই সদস্য মনে করেন— সেন্সর বোর্ডের উচিৎ হবে প্রযোজক নয়, নির্মাতার ব্যাপারে পদক্ষেপ নেওয়া।

সেন্সর বোর্ডের ভাইস চেয়ারম্যান নিজামুল কবীরের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আমরা তাদের জবাবের অপেক্ষায় রয়েছি। তবে নির্মাতার আগের রেকর্ডের (মুচলেকা) ব্যাপারেও যেহেতু খবর প্রকাশ হয়েছে তাই আমরা সেগুলোও খতিয়ে দেখব।’

মালেক আফসারি নির্মিত প্রায় সব সিনেমা ভিনদেশি সিনেমা থেকে অনুপ্রাণিত। ‘মাস্টার মেকার’খ্যাত এই নির্মাতা নিজেই সংবাদ সম্মেলনে এই তথ্য জানিয়েছিলেন।

গত ঈদুল ফিতরে মুক্তি পায় ‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমাটি। তখন পরিচালক মালেক আফসারি জোর দাবি তুলেন সিনেমাটি নকল নয়। এমনকি সিনেমাটি ভারতীয় কিংবা তামিল সিনেমার নকল প্রমাণ করতে পারলে ১০ লাখ টাকা পুরস্কার দেবেন বলেও ঘোষণা দিয়েছিলেন। নানা মাধ্যমে প্রচার চালিয়ে সিনেমাটির বেশ হাইপ তুলতে সক্ষম হয়েছিলেন তিনি। ফলে দর্শক আগ্রহ নিয়ে হলে গিয়েছেন। কিন্তু সিনেমাটি দেখার পর দর্শক অভিযোগ তুলেন— দক্ষিণ কোরিয়ার ‘দ্য টার্গেট’ সিনেমার কাহিনি ও চিত্রনাট্য ‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমায় ব্যবহার করা হয়েছে।

মুক্তির আগে মালেক আফসারি বলেছিলেন, ‘আলোচনায় আসার জন্য আমি মানুষ খুন ছাড়া সব করতে পারি’। এই নির্মাতা আলোচনায় আসার জন্য হয়তো এগুলো বলেছেন— সিনেমা সংশ্লিষ্টদের এমনটাই ধারণা। পরিচালকের অতিকথন এবং প্রচারণার এই কৌশল এখন তার জন্য কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে মত দিয়েছেন চলচ্চিত্র বোদ্ধারা।

অন্যদিকে ‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমার প্রযোজক (শাকিব-ইকবাল) এবং পরিচালকের বিরুদ্ধে সেন্সর বোর্ডের নীতিমালা অনুযায়ী পদক্ষেপ নেয়ার জন্য লিখিত আবেদন করেছেন নাটক ও বিজ্ঞাপন নির্মাতা আনন্দ কুটুম। অভিযোগপত্রে আনন্দ উল্লেখ করেছেন, “পাসওয়ার্ড’ সিনেমার কোথাও উল্লেখ নেই এটি ‘দ্য টার্গেট’ সিনেমার কপিরাইট নিয়ে নির্মিত হয়েছে। সিনেমাটির কোথাও উল্লেখ নেই এটি বিদেশি সিনেমার ছায়া অবলম্বনে নির্মিত। পুনরায় সেন্সরের মাধ্যমে পরিষ্কার হওয়া যাবে ‘পাসওয়ার্ড’ সিনেমাটি নকল। লোকেশন ভিন্ন হলেও দুটো সিনেমার দৃশ্যধারণ করা হয়েছে একইভাবে। গল্প, দৃশ্য, শট ও অ্যাকশনে নকলের পাশাপাশি প্রপসের ক্ষেত্রেও নকল করার প্রবণতা ছিল। যখন একজন পরিচালক বিদেশি সিনেমা নকল করেও সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও গণমাধ্যমে বলেন, ‘এটা নকল নয় গবেষণা’, তখন পরবর্তী প্রজন্মের নির্মাতারা আশাহত হন। অন্যের গল্প এবং দৃশ্যধারণ নিজের নামে চালিয়ে দেওয়া কি নিয়মবহির্ভূত নয়?’’

Leave a Reply


এই বিভাগের আরো

সর্বশেষ

%d bloggers like this: