,


নামমাত্র জিও ব্যাগ ফেলে তিস্তার ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা
নামমাত্র জিও ব্যাগ ফেলে তিস্তার ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা

নামমাত্র জিও ব্যাগ ফেলে তিস্তার ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা

রাজারহাট (কুড়িগ্রাম) প্রতিনিধিঃ কুড়িগ্রামের রাজারহাটে তিস্তা নদীর তীব্র ভাঙ্গনে বিদ্যানন্দ ইউপির চতুরা মৌজার বেশীরভাগ এখন তিস্তার পেটে। চতুরা মৌজার কালির মেলা এলাকায় গত ১ সপ্তাহের ব্যবধানে ৫০টি পরিবার নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ভাঙ্গনের কবলে রয়েছে কালিরহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কালির মেলা বাজারটি। কুড়িগ্রাম পাউবো ৫০০০ জিও ব্যাগের টেন্ডার করে ঠিকাদারের মাধ্যমে নামমাত্র জিও ব্যাগ ফেলে তিস্তার ভাঙ্গন রোধের চেষ্টা করছে। গত এক সপ্তাহে ৫০০০ জিও ব্যাগ ফেলার কথা বললেও ৭ জুলাই পর্যন্ত জিও ব্যাগ ২৫০০-৩০০০ মত ফেলার কথা জানিয়েছেন নাম প্রকাশ না করার শর্তে এলাকার একাধিক মানুষ। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,কালির মেলা বাজারে ২০০-২৫০টি জিও ব্যাগ রাখা হয়েছে। ওই জিও ব্যাগ গুলো ২০/২২ জনের মত শ্রমিক নদীর ভাঙ্গন কবলিত স্থানে ফেলছে। সেখানে উপস্থিত কুড়িগ্রাম পাউবোর ওয়ার্ক ত্র্যাসিসটেন্ট সরাফত আলীর সঙ্গে কথা হলে তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান,কাজটি করছেন কুড়িগ্রামের ঠিকাদার সাজু। আজ তিস্তার ভাঙ্গন কবলিত স্থানে ১৪০০ ব্যাগ ফেলা হবে। কিন্তু এখানে বাস্তবচিত্র ভিন্ন ! যা একেবারেই বিশ্বাস যোগ্য নহে। পাশে দেখা মিলে লেবার সর্দার আব্দুস ছালামের তার সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন,আজ নদীতে ১৩০০ ব্যাগ ফেলা হবে। শ্রমিকের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ৫৪ জন শ্রমিক কাজ করছে। এ বিষয়ে কুড়িগ্রাম পাউবোর নির্বাহী প্রকৌশলী আরিফুর ইসলামের মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

Leave a Reply


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: