,


প্রিয়াঙ্কার ওপর এত রাগ কেন?
প্রিয়াঙ্কার ওপর এত রাগ কেন?

প্রিয়াঙ্কার ওপর এত রাগ কেন?

ডেস্ক রিপোর্টারঃ চল মিনি আসাম যাব

দেশে বড় দুখ রে…’

কিন্তু দুঃখজনক বিষয় হলো, দুঃখ এখন আসামে। বাংলাদেশের কুড়িগ্রাম, জামালপুর, গাইবান্ধা, বগুড়া, সিরাজগঞ্জ, টাঙ্গাইল প্রভৃতি জেলার মতো প্রতিদিন প্রতি ঘণ্টায় বন্যা পরিস্থিতির অবনতি ঘটছে ভারতের আসাম রাজ্যেও। এখন যেদিকে চোখ যায় শুধু পানি আর পানি। এত সুন্দর জায়গা বলেই হয়তো বিশ্বসুন্দরী প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে আসামের ট্যুরিজমের শুভেচ্ছাদূত বানিয়েছিল আসাম রাজ্য সরকার।

প্রিয়াঙ্কা চোপড়া দীর্ঘদিন ধরে ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূতের দায়িত্ব পালন করে আসছেন। কাজ করছেন শরণার্থী শিশুদের নিয়ে। কিন্তু আসামের বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে একটা টুইট করেই দায়িত্ব শেষ করেছেন। আর সেই টুইট এসেছে অনেক দেরিতে। সেখানে প্রিয়াঙ্কা চোপড়া লিখেছেন, ‘আসাম থেকে যে খবরগুলো আসছে, তাতে আমি বিধ্বস্ত। এই মানুষগুলোর কষ্টে আমার হৃদয় ভেঙে যাচ্ছে।’

আর তাতে বেজায় চটেছেন বলিউডের জনপ্রিয় তারকা অক্ষয় কুমার। তিনিও আসামের বন্যা নিয়ে টুইট করেছেন। কিন্তু সেখানে তিনি আসামের বন্যাদুর্গতদের জন্য এক কোটি রুপি দান করার কথা জানিয়েছেন। সবাইকেও আহ্বান জানিয়েছেন, যার যার অবস্থান থেকে যতটুকু সম্ভব, সেটুকু নিয়েই সেই মানুষগুলোর পাশে দাঁড়ানোর জন্য। শুধু তা-ই নয়, অক্ষয় কুমার আরও এক কোটি রুপি দিয়েছেন আসামের কাজিরাঙা জাতীয় উদ্যান রক্ষার জন্য। এভাবেই আক্রান্ত মানুষদের পাশে দাঁড়িয়েছেন অক্ষয় কুমার।

‘মিশন মঙ্গল’ ছবির প্রচারণার এক অনুষ্ঠানে অক্ষয় কুমারকে দুর্যোগে আক্রান্ত মানুষের পাশে দাঁড়ানোর বিষয়ে প্রশ্ন করা হয়। অক্ষয় কুমার বলেন, ‘আমি একটা আলোকচিত্র দেখেছি। আসামের বন্যার। সেখানে মায়ের কোলে একটা ছোট মেয়ে ছিল। তারা বন্যার পানিতে ভেসে যাচ্ছিল। সেই নারী তো আমার স্ত্রী হতে পারত। সেই মেয়েটা আমার সন্তান হতে পারত। আমি, আমরা খুবই ভাগ্যবান, আমাদের সঙ্গে এ রকম কিছু হয়নি।’

অক্ষয়ের বক্তব্যের পরের অংশে ঝরে পড়ে রাগ। নাম উল্লেখ না করলেও সেই রাগ যে প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার জন্য, তা আর বলে দিতে হয় না। প্রিয়াঙ্কা চোপড়ার টুইটকে ইঙ্গিত করে তিনি বলেন, ‘আমি খুব দুঃখিত, কারণ এই কথাটা বলতে হচ্ছে। আমাদের এমন দুঃখজনক পরিস্থিতিতে “হৃদয় ভেঙেচুরে চুরমার হয়ে গেছে”-মার্কা টুইট বন্ধ করতে হবে। টুইটারে এসব না বলে যতটা সম্ভব তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসতে হবে। অর্থনৈতিকভাবে। আপনি যা পারেন, তা-ই দেন। প্লিজ, কিছু কাজের কাজ করেন। এই মানুষগুলোর জন্য।’

‘মিশন মঙ্গল’ ছবির প্রচারণার এক অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাব দেন অক্ষয় কুমার
এরপর প্রিয়াঙ্কা চোপড়াকে আসামের ট্যুরিজমের শুভেচ্ছাদূতের পদ থেকে অপসারণের দাবি উঠেছে। অন্যদিকে, অক্ষয় কুমারকে বলা হচ্ছে কেবল বড় পর্দার নয়, বরং সত্যিকারের হিরো। অক্ষয় কুমারের এই ভিডিওর নিচে বিশেষ করে আসাম অঞ্চলের মানুষ আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

অক্ষয় কুমার অভিনীত ‘মিশন মঙ্গল’ ছবিটি মুক্তি পাচ্ছে আগামী ১৫ আগস্ট।

Leave a Reply


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: