,


বিশ্বের সবচেয়ে ‘হ্যান্ডসাম’ হৃতিক রোশন

বিশ্বের সবচেয়ে ‘হ্যান্ডসাম’ হৃতিক রোশন

ডেস্ক রিপোর্টারঃ জনপ্রিয় ফুটবল তারকা ডেভিড বেকহ্যাম, ‘টোয়াইলাইট’ ছবির নায়ক রবার্ট প্যাটিনসন আর ‘ক্যাপ্টেন আমেরিকা’ ছবির নায়ক ক্রিস ইভানের মতো সুপুরুষদের পেছনে ফেলে ‘বিশ্বের সবচেয়ে হ্যান্ডসাম পুরুষ’ হয়েছেন বলিউডের অন্যতম জনপ্রিয় তারকা হৃতিক রোশন। যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক একটি এজেন্সি থেকে সম্প্রতি একটি জরিপ পরিচালনা করা হয়। বিভিন্ন দেশের দর্শক অংশ নেন সেই জরিপে। এরপর চূড়ান্ত ফলাফল প্রকাশ করা হয়।

এদিকে এই খেতাব পাওয়ার পর হৃতিক রোশনের কাছে জানতে চাওয়া হয়, তাঁর এই সৌন্দর্যের রহস্য কী? তখন হিন্দুস্তান টাইমসকে তিনি মজা করে বলেন, ‘সব অবদান ব্রক্কোলির! এর জন্যই এই খেতাব পেয়েছি।’ তারপর নিজের প্রতিক্রিয়া জানালেন এভাবে, ‘এই সম্মান পেয়ে নিজেকে ধন্য মনে করছি। বিশ্বের সবচেয়ে দামি সম্পদ চরিত্র। ভালো চরিত্রের মানুষের চেহারা এমনিতেই আকর্ষণীয়।’

এর আগে বিশ্বের অন্যতম ‘গুড লুকিং ম্যান’ খেতাব পেয়েছেন হৃতিক রোশন। মেদহীন ও পেশিবহুল শরীর। এইট প্যাক অ্যাবস। শক্ত লম্বা চোয়াল ও তীক্ষ্ণ চোখ। তাঁকে অনেকেই গ্রিক দেবতার মূর্তির সঙ্গেও তুলনা করেন। বিশ্বের অনেকের কাছে তিনি ‘ফিটনেস আইকন’।

হৃতিক রোশনের নতুন ছবি ‘সুপার থার্টি’ মুক্তি পেয়েছে গত ১২ জুলাই। ৪৬ বছর বয়সী ‘ম্যাথ জিনিয়াস’ আনন্দ কুমারের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন ৪৫ বছর বয়সী হৃতিক রোশন। ১৯৯৪ সালে আনন্দ কুমার কেমব্রিজে পড়ার সুযোগ পেয়েছিল। সব ঠিক ছিল। শুধু দরিদ্র আনন্দ কুমার প্লেনের টিকিটের টাকা জোগাড় করতে পারেনি। তাই কেমব্রিজে পড়ার স্বপ্ন সেখানেই ভেঙে গেছে। বড় ছেলের স্বপ্ন সত্যি করতে না পারার হতাশা ঘিরে ধরেছিল গরিব ডাকপিয়ন বাবাকে। এসব দুশ্চিন্তায় একসময় সে চলে গেল না-ফেরার দেশে। সংসার চলবে কীভাবে? আনন্দ কুমারের মা তখন সংসারের হাল ধরে। পাঁপড় কিনে বিক্রি করত মা। সেই টাকায় কোনো রকমে লেখাপড়া শেষ করল আনন্দ কুমার।

অর্থের অভাবে কেমব্রিজে পড়তে পারেনি বলে অর্থের পেছনে ছোটেনি আনন্দ কুমার। নিজের স্বপ্ন সত্যি হয়নি, তাই অন্যের স্বপ্নপূরণে নেমে যায়। যেসব গরিব ছাত্র স্বপ্ন দেখত আইআইটিতে (ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি) পড়ার, তাদের স্বপ্নের গোড়ায় নিয়মিত পানি ঢালত আনন্দ কুমার। আর বুদ্ধিতে দিত শাণ। নিজের স্বল্প আয়ের পুরোটাই সে খরচ করত ওই ছাত্রদের খাওয়া, পড়া, থাকা আর লেখাপড়ার খাতে।

২০০২ সাল থেকে আনন্দ কুমার নিজের কোচিং সেন্টার চালু করেন। সেখানে প্রতিবছর বিহারের সেরা ৩০ জন গরিব মেধাবী ছাত্র একেবারে বিনা পয়সায় ‘সুপার থার্টি’ প্রজেক্টের অধীনে আইআইটির ভর্তি পরীক্ষার জন্য কোচিং করার সুযোগ পায়। সিনেমার নামও তাই আনন্দ কুমারের পরামর্শ অনুসারে প্রজেক্টের নামেই রাখা হয়েছে। ২০১৮ সাল পর্যন্ত আনন্দ কুমারের কোচিং থেকে ৪৮০ জনের ভেতরে ৪২২ জন চান্স পায়। ডিসকভারি চ্যানেল আনন্দ কুমারের ওপর প্রামাণ্যচিত্র নির্মাণ করে।

৬৫ কোটি রুপি বাজেটে ‘সুপার থার্টি’ ছবিটি মুক্তির পর মাত্র ১০ দিনেই ১০০ কোটি রুপি আয় করেছে। ছবিতে হৃতিক রোশনের দুর্দান্ত অভিনয় নিয়ে আলোচনা শুরু হয় বলিপাড়ায়।

হৃতিক রোশনের পরবর্তী ছবি ‘ওয়ার’। পরিচালক সিদ্ধার্থ আনন্দ। ছবিতে অভিনয় করেছেন হৃতিক রোশন, টাইগার শ্রফ, বাণী কাপুর। যশরাজ ফিল্মসের ছবিটি ২ অক্টোবর মুক্তি পাবে।

Leave a Reply


এই বিভাগের আরো

%d bloggers like this: